মঞ্চায়িত হতে যাচ্ছে বটতলা’র `খনা’

0
248

ইকরামুল হাসান শাকিল:- বহু দিন পর নাটকের দল ‘বটতলা’ ফিরছে তাদের দর্শক নন্দিত নাটক ‘খনা’ নিয়ে। আগামী ১৭ নভেম্বর ২০১৮ শনিবার বাংলাদেশ মহিলা সমিতি’র ড. নীলিমা ইব্রাহিম মিলনায়তনে ঠিক সন্ধ্যা সাতটায় প্রদর্শিত হতে যাচ্ছে ‘খনা’র ৬৩তম মঞ্চায়ন। নাটকটিতে অভিনয় করছেন কাজী রোকসানা রুমা, সামিনা লুৎফা নিত্রা, মোহাম্মদ আলী হায়দার, ইভান রিয়াজ, তৌফিক হাসান ভূঁইয়া, শে’উতি শাহগুফতা, মিজানুর রহমান, চন্দন পাল, ম. সাঈদ, পঙ্কজ মজুমদার, অনন্ত হিল্লোল, হুমায়ূন আজম রেওয়াজ, বাকিরুল ইসলাম, নাফিউল ইসলাম, হাফিজা আক্তার ঝুমা ও সুমিত তেওয়ারি রানা।

নাটকটির মঞ্চ ও আলোক পরিকল্পনা করেছেন আবু আউদ আশরাফী, সুর ও সংঙ্গীত ব্রাত্য আমিন, শারমিন ইতি ও জিয়াউল আবেদীন রাখাল। পোষাক পরিকল্পনা তাহমিনা সুলতানা মৌ ও তৌফিক হাসান ভূঁইয়া। কোরিওগ্রাফি মোহাম্মাদ রাফি ও নাসির উদ্দিন নাদিম। প্রপস্ হুমায়রা আখতার। পোষ্টার তৌহিন হাসান।

কাহিনী সংক্ষেপ:
এক বিদুষী ‘খনা’ যার অন্য নাম লীলাবতী। তার গল্পটা অনেক পুরোনো, কিংবদন্তীর ঘেরাটোপে বন্দী। তবু যেটুকুর তল খুঁজে পাওয়া যায় তাতে বোধ হয় যে তিনি এক বিদুষী জ্যোতিষী, স্বামী মিহিরও একই বৃত্তিধারী। শ্বশুর যশস্বী জ্যোতিষী বরাহ মিহির। পুত্রজায়ার যশ, খ্যাতি ও বিদ্যার প্রভাব দর্শনে বরাহের হীনমন্যতা ও ঈর্ষা। শ্বশুরের নির্দেশে লীলাবতীর জিহŸা কর্তন ও তার ‘খনা’ হয়ে ওঠার গল্প পেরিয়েছে প্রজন্মের সীমানা। খনার বচনের মাঝে টিকে থাকা শত বছরের আগের জল, মাটি, ফসল আর মানুষের গন্ধ মাখা জ্ঞান আর সত্যটুকু কি সত্যি লীলাবতীর? নাকি এ সত্য-তথ্য সবই এ ভূ-খন্ডের বৃষ্টি, পলি, আর জল হাওয়ার সাথে মিশে থাকা যুগান্তরের সামষ্ঠিক জ্ঞানের সংকলন? লীলাবতী শুধুই কি একজন নারী বলে তার পরিণতি নির্মম, নাকি তিনি নারী হয়ে মিশেছিলেন চাষাভুষোর সনে; সেই তার কাল? পুরুষতন্ত্র না শ্রেণী কাঠামো; নাকি উভয় দাঁড়ায় লীলাবতীর বিপ্রতীপে? মিহির বা প্রাকৃত লোকালয় কারোর পরোয়া না করা জীবন ত্যাগী নেশার ঘোর তাকে নিয়ে যায় দিগন্তের ওপার। খনার সত্য শুধু থেকে যায় কৃষকের মুখে। তবু প্রশ্ন থাকে, খনার সত্যই কি একক সত্য? নাকি আজকে নির্ভুল যা কাল তা হতে পারে অসত্য? শৃুধু সত্যের পক্ষে দাঁড়ানোর যে মৃত্যুনেশা তাঁর সে নেশা কি এক রোখা জেদ? খনা নিজেই নিজেকে করেন সম্মুখীন প্রশ্নের।

নাটকটিতে সুর ও সঙ্গীতে আছেন: শারমিন ইতি, অনন্ত হিল্লোল, লোচন, হুমায়ূন আজম রেওয়াজ, শে’উতি শাহগুফতা, বাকিরুল ইসলাম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here