‘আশিক বানায়া আপনে’ অভিনেত্রী তনুশ্রী দত্ত’র অভিযোগ

0
305

 ‘আশিক বানায়া আপনে’ অভিনেত্রী তনুশ্রী দত্ত অভিযোগ করেছেন, ১০ বছর আগে একটি গানের দৃশ্যের শুটিং চলাকালে খ্যাতিমান অভিনেতা নানা পাটেকার তাঁর সঙ্গে ‘দুর্ব্যবহার’ করেছেন। আর এই বিতর্ক তাঁর ক্যারিয়ারে খারাপ প্রভাব ফেলেছে। তিনি ছবির দুনিয়া থেকে দূরে সরে যান। চলে যান যুক্তরাষ্ট্রে। তনুশ্রীকে শেষবার বড় পর্দায় দেখা গিয়েছিল ২০১০ সালে, ‘অ্যাপার্টমেন্ট’ ছবিতে।

আট বছর পর সম্প্রতি তনুশ্রী ভারতে ফিরেছেন এবং এখনো ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে তাঁর লড়াই বজায় রেখেছেন। এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, নানা পাটেকার তাঁর সঙ্গে এমন কাণ্ড করে বসেছিলেন যে তিনি গানের শুটিং ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হন। ‘হর্ন ওকে প্লিজ’ গানের শুটিং চলছিল। তিনি অভিযোগ করেন, নারী নিপীড়নের আরো ইতিহাস আছে এই বর্ষীয়ান অভিনেতার। বলিউডে কীভাবে অভিনেত্রীদের নির্বাচন করা হয়, সে সম্পর্কেও মত দেন তনুশ্রী। বলেন, ‘প্রধান চরিত্রের অভিনেতাই নায়িকা নির্বাচন করে। কাস্টিং ডিরেক্টর শুধু পার্শ্ব অভিনেতা নির্বাচন করে। কিন্তু প্রধান চরিত্রের অভিনেত্রী নির্বাচিত হয় শুধু তাঁর দ্বারা।’ নানা পাটেকারের সঙ্গে অভিনয় করায় অক্ষয় কুমার ও রজনীকান্তর সমালোচনা করেন তনুশ্রী দত্ত। আরও বলেন, ‘যদি রজনীকান্ত ও অক্ষয় কুমারের মতো বড় তারকারা এই ধরনের মানুষের সঙ্গে কাজ করে, তবে কোনো আন্দোলনের আশা কি করা যায়?’
শুটিং সেটে নানা পাটেকার কী করেছিলেন, তার বর্ণনা দিয়ে নিউজ ১৮-কে তনুশ্রী বলেন, ‘তিনি সব ধরনের চেষ্টাই করেছিলেন। হাত দিয়ে আমাকে ধরে ফেলেন, ঠেলতে থাকেন; এরপর কোরিওগ্রাফারকে সরে যেতে বলেন এবং পরের বিষয়টা আমি জানি, তিনি অন্তরঙ্গ কিছু করতে চেয়েছিলেন। এটা হাস্যকর ছিল।’ ‘আমি সম্পূর্ণ সচেতন ছিলাম। প্রতিবাদ করে বলেছি, আমি তাঁর সঙ্গে অন্তরঙ্গ নৃত্য করতে পারব না। কারণ সেটে আমি তাঁর সঙ্গে অস্বস্তিবোধ করছিলাম।’
‘কী ঘটেছিল, তা সবাই দেখেছে। কিন্তু সেই স্মৃতি এবং জনপ্রিয় ধারণা হলো—যদি নিপীড়নের বিরুদ্ধে তনুশ্রী দত্ত মুখ খোলে, তবে তাঁর ক্যারিয়ার আর থাকবে না। পুরো ইন্ডাস্ট্রি ঘটনাটা দেখেছে, কিন্তু নিন্দা জানাতে কেউ টুঁ শব্দটিও করেনি। এ দেশের প্রতিটি মানুষ আমার এ ঘটনাটি জানে এবং জাতীয় টেলিভিশনে তিন দিন ধরে আলাপও চলেছে, কিন্তু এ ব্যাপারে সবাই নীরব। তো, আমার প্রশ্ন হলো, এই হিপোক্রিটদের কে বিশ্বাস করতে যাবে? এইসব মানুষই আবার উঠে দাঁড়ায়, নারী ক্ষমতায়নের কথা বলে,’ যোগ করেন তনুশ্রী। পুরো ঘটনা তনুশ্রীর ক্যারিয়ারে প্রভাব ফেলে। দীর্ঘদিন তাঁর আতঙ্কে কেটেছে। বিষণ্ণতায় ভুগেছেন তিনি। এমনকি শুটিংয়ে যেতেও ভয় পেতেন।
‘ওই বিতর্কের পর ৩০-৪০টি ছবির অফার পেয়েছিলাম। কিন্তু আমি এমন আতঙ্কে ছিলাম যে ছবির সেটে পর্যন্ত যেতে ভয় পেতাম। কারণ যখন তুমি এমন অভিজ্ঞতার ভেতর দিয়ে যাবে, সবাইকে তোমার একই রকম মনে হবে। এটা বিশ্বাস করতেও কষ্ট হবে যে, তুমি ভালো মানুষের সঙ্গেও কাজ করেছ।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here