রাশিয়ার চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হবে বাংলাদেশের ‘সাঁতাও’

0
492


তানভীর আহমেদ তুষার:

রাশিয়ার ১৯তম কাজান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের জন্য নির্বাচিত হয়েছে বাংলাদেশের সিনেমা ‘সাতাও’। আগামী ৫ থেকে ৯ সেপ্টেম্বর রাশিয়ার তাতারস্তানের রাজধানী কাজান শহরে উৎসবের ‘রাশিয়া-দ্যা ইসলামিক ওয়ার্ল্ড’ বিভাগে সিনেমাটি প্রদর্শিত হবে। উৎসবটি রাশিয়া সরকার এবং তাতারস্তান প্রজাতন্ত্রের রাইসের সহায়তায় অনুষ্ঠিত হয়।

এ বছর ‘রাশিয়া-দ্যা ইসলামিক ওয়ার্ল্ড’ বিভাগে বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, ভারত, ইরান, কাজাখস্তান, কিরগিজস্তান, তুরস্ক, রাশিয়া ও উজবেকিস্তান এ ৯টি দেশের ৯টি সিনেমা মনোনীত হয়েছে। এটিই একমাত্র বাংলাদেশী চলচ্চিত্র যা রাশিয়া-ইসলামিক ওয়ার্ল্ড বিভাগে বিভিন্ন দেশের অন্যান্য ৯টি চলচ্চিত্রের সাথে মনোনীত হয়েছে। সিনেমাটি মূল ক্যাটাগরিতে মনোনীত না হলেও ইসলামিক ওয়ার্ল্ড ক্যাটাগরিতে বিজয়ীরা পাবেন তিন লাখ রুবেল (যা আনুমানিক সাড়ে তিন লাখ টাকার বেশি)।

‘সাতাও’-এর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে ‘দ্য লাস্ট বার্ডস অব প্যাসেজ’ (তুরস্ক), ‘প্যারালিম্পিয়ান’ (কাজাখস্তান), ‘হোম ফর সেল’ (কিরগিজস্তান), ‘ভালোবাসার রূপে’ (ইরান), ‘অসুখী বর’ (উজবেকিস্তান), ‘ওরপা’ (ইন্দোনেশিয়া), ‘ক্রিয়ার’ (রাশিয়া, তাতারস্তান), ‘নটস’ (রাশিয়া) এবং ‘মরিয়ম’ (ভারত)।

‘সাঁতাও’ চলচ্চিত্রের পরিচালক খন্দকার সুমন বলেন, এমন একটি প্রেস্টিজিয়াস চলচ্চিত্র উৎসবে আমার প্রথম চলচ্চিত্র মনোনীত হওয়ায় আমি খুব আনন্দিত। এমন একটি আনন্দের সংবাদের সাথে আর একটি সংবাদ যোগ করতে চাই। ‘সাঁতাও’ শিগগিরই ‘ওটিটি’ প্ল্যাটফর্মেও আসছে।

সাঁতাও চলচ্চিত্রের একটি দৃশ্য

সাতদিন ধরে লাগাতার বৃষ্টি হওয়ার সময়টাকে বোঝাতে দেশের উত্তরাঞ্চলে ‘সাঁতাও’ শব্দটি ব্যবহৃত হয়। সাঁতাওয়ের সময়ে কৃষিনির্ভর সমাজে কেমন প্রভাব ফেলে, কৃষকদের সংগ্রামী জীবন এবং প্রান্তিক পটভূমি থেকে নারীর মাতৃত্বের সর্বজনীন রূপ, সুরেলা জনগোষ্টির সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্না ও প্রান্তিক মানুষের জীবনের কাহিনিকে কেন্দ্র করে গণঅর্থায়নে ‘সাঁতাও’ সিনেমাটি নির্মাণ করা হয়েছে। এই সিনেমার মূল চরিত্রে অভিনয় করেছেন আইনুন পুতুল, ফজলুল হক, স্বাক্ষ্য শাহীদ, শ্রাবণী দাস রিমি প্রমুখ। চলচ্চিত্রের কাহিনি, চিত্রনাট্য এবং সংলাপ লিখেছেন খন্দকার সুমন। গত বছরের ২৪ নভেম্বর ভারতের ‘৫৩তম ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল অব ইন্ডিয়া’ চলচ্চিত্র উৎসবে গোয়া প্রদেশের পাঞ্জি শহরে চলচ্চিত্রটির ‘ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ার’ হয়। ‘২১তম ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব’-এ বাংলাদেশ প্যানরমা বিভাগে সেরা চলচ্চিত্র ‘সাঁতাও’ সিনেমা হলে মুক্তি পেয়েছিল গত ২৭ জানুয়ারি। এরপর গত মার্চ থেকে দেশের বিভিন্ন জেলায় সিনেমাটির বিকল্প প্রদর্শনী হয়েছে।

আইনুন পুতুল ও ফজলুল হক

‘সাঁতাও’ ৩ মার্চ বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে ‘তৃতীয় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উৎসব’-এ ‘সেরা প্রযোজনা পরিকল্পনা’ পুরস্কারে পুরস্কৃত হয়। ৫ মার্চ ভারতের কেরালা প্রদেশের ত্রিশুল শহরে অনুষ্ঠিত চলচ্চিত্র উৎসব ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল অব ত্রিশুল (ইন্ডিয়া)-এর ১৮তম আসরে চলচ্চিত্রটি প্রদর্শিত হয়।
এর আগে সিনেমাটি ২৩ জানুয়ারি ঢাকা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে বাংলাদেশ প্যানরমা বিভাগে সেরা চলচ্চিত্র পুরস্কার ‘ফিফরিসি অ্যাওয়ার্ড’ পেয়েছিল। ষষ্ঠ নেপাল আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে (এনআইএফএফ) ওয়ার্ল্ড প্যানরমা বিভাগে সেরা চলচ্চিত্র হিসেবে ‘গৌতম বুদ্ধ অ্যাওয়ার্ড’ অর্জন করে। লন্ডনে অনুষ্ঠিত ২৪তম রেইনবো আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে ‘রেইনবো ফিল্ম সোসাইটি স্পেশাল মেনশন অ্যাওয়ার্ড’ অর্জন করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here